মিডিয়ার ভূমিকায় মাঝে মধ্যে কষ্ট পাই:গভর্নর
মিডিয়ার ভূমিকায় মাঝে মধ্যে কষ্ট পাই:গভর্নর
মিডিয়ার ভূমিকায় মাঝে মধ্যে কষ্ট পাই:গভর্নর
মিডিয়ার ভূমিকায় মাঝে মধ্

কাবুলে বোমায় নিহত ৮০, আইএসের দায় স্বীকার

 

রানিংমেট হিসেবে টিম কাইনকে বেছে নিলেন হিলারি

 

যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির সম্ভাব্য প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন (বায়ে) ও তার রানিংমেট ভার্জিনিয়ার সিনেটর টিম কাইন। ছবি: রয়টার্স

হিলারির রানিংমেটের তালিকায় নিউ জার্সির সিনেটর করি বুকার এবং কৃষিমন্ত্রী টম ভিসাকের নামও ছিল। কিন্তু শেষপর্যন্ত তিনি ভার্জিনিয়ার সিনেটর টিম কাইনকেই বেছে নিলেন। অন্যদিকে, ফিলাডেলফিয়ায় আগামী সপ্তাহে ডেমোক্রেটিক দলের কনভেনশনে দলীয় প্রার্থী হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে হিলারির নাম ঘোষণা করা হতে পারে। চলতি বছরের ৮ নভেম্বর ‍যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। এরই মধ্যে রিপাবলিকান দল থেকে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। প্রেসিডেন্ট নির্বাচন নিয়ে বেশ কয়েকটি মতামত জরিপে ট্রাম্পের চেয়ে এগিয়ে ছিলেন


 

হামলার তদন্ত জানলে তাজ্জব হয়ে যাবেন: প্রধানমন্ত্রী

 

সাম্প্রতিক জঙ্গি হামলার তদন্তে চমকে দেওয়ার মতো তথ্য আসছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কীভাবে এসব হামলা হয়েছে, তদন্তে তা খুঁজে বের করা হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেছেন, এই তথ্য প্রকাশ হলে ‘তাজ্জব’ বনে যেতে হবে। তবে তদন্ত মাঝ পর্যায়ে থাকায় তা খোলসা করেননি প্রধানমন্ত্রী। এ নিয়ে ‘বেশি খোঁচাখুঁচি’ না করতে সাংবাদিকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। জঙ্গিবাদী তৎপরতার তদন্তে ভারতের সঙ্গে পারস্পারিক সহযোগিতা চলার কথা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে ‘গোয়েন্দা তথ্য’ চাওয়া হয়েছে। আতঙ্ক সৃষ্টি করাই গুলশানে হামলার উদ্দেশ্য ছিল মন্তব্য করে তিনি বলেছেন, “যে সম্মানজনক অবস্থায় নিয়ে গিয়েছিলাম বাংলাদেশকে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ মোকাবিলা করে অর্থনৈতিক গতিধারা সৃষ্টি করে, সেই সম্মানজনক অবস্থানে মনে হচ্ছে একটা ছেদ এনে দিল।” আসেম সম্মেলন থেকে ফেরার পরদিন রোববার গণভবনে সংবাদ সম্মেলনে এসব বলেন শেখ হাসিনা। এক সাংবাদিক গুলশান ও শোলাকিয়ায় জঙ্গি হামলার তদন্তের অগ্রগতি জানতে চাইলে তিনি বলেন, “তদন্ত সম্পন্ন হওয়ার পর আপনারাই (সাংবাদিক) তাজ্জব হয়ে যাবেন। “তদন্ত কতটুকু এগোলো, সব কথা তো বলা যাবে না। বলে ফেললে তদন্ত তো ওখানে শেষ হয়ে যাবে। কাজেই এখানে যতটুকু ঠিক বলা প্রয়োজন ততটুকু বলা যাচ্ছে। এখনও তদন্তের অনেকগুলি ধাপ আছে, কাজ আছে। সেগুলি কিন্তু করা হচ্ছে এবং খুঁজে খুঁজে বের করা হচ্ছে।
“এবং ভবিষ্যতে আরও এমন এমন জিনিস বের হবে যখন সম্পূর্ণটা সফলভাবে করতে পারব যে, আপনারা নিজেরাই তাজ্জব হয়ে যাবেন কীভাবে এই কাজগুলি এরা করেছে।”
সাম্প্রতিক এই দুই হামলায় অংশ নিয়ে নিহতদের মধ্যে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি ঢাকার বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা রয়েছেন। গুলশানে কমান্ডো অভিযানে নিহত নিবরাজ ইসলাম এবং শোলাকিয়ায় পুলিশের সঙ্গে গোলাগুলিতে নিহত আবীর রহমান নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন। গুলশান হত্যাকাণ্ডের পর ‘মুক্ত হওয়া’ এই বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক আবুল হাসনাত রেজাউল করিমও পুলিশের সন্দেহের তালিকায় রয়েছেন। হামলাকারীদের বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় নিজের ফ্ল্যাটে আশ্রয় দেওয়ার অভিযোগে শনিবার নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপ-উপাচার্য গিয়াস উদ্দিন আহসান এবং তার ভাগনে ও বাসাটি দেখভালের দায়িত্বে থাকা একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সম্মেলনে অন্যান্য দেশের নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে এ নিয়ে আলোচনার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, “অমরা এতদিন অনেকটা নিয়ন্ত্রণে রেখেছিলাম। কিন্তু এটা এখন বিশ্বব্যাপী। উন্নত দেশগুলোতেও হচ্ছে। এখানে সহযোগিতা সকলকে সকলের করতে হবে। কোথায়, কীভাবে কারা মদদ দিচ্ছে সেটাই সবাইকে বলে এসেছি।
“অস্ত্র কোত্থেকে আসছে, কারা তৈরি করছে, অস্ত্রের ডিলার কে, প্রশিক্ষণ কারা দিচ্ছে, অর্থদাতা কে? যেখানে যেখানে এ ধরনের ঘটনা ঘটছে সবাই মিলিতভাবে এ তথ্য সংগ্রহ করবে, সহযোগিতা করবে এটা আমরা বলেছি।”

 


‘এখন জঙ্গিবাদে জড়াচ্ছে কালো টাকার মালিকদের সন্তানরা’

কালো টাকার মালিকদের সন্তানেরাই এখন জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পড়ছে বলে মন্তব্য করেছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় তিনি বলেন, “আমি এতো দিন মনে করেছিলাম… কিছুটা বিশ্বাসও করেছিলাম যে মাদ্রাসার ছাত্ররাই জঙ্গি হামলার সাথে জড়িত থাকে।
“কিন্তু মাদ্রাসা নয়, দেশের উচ্চ শিক্ষা প্রতিস্থানে পড়ুয়া কালো টাকার মালিকদের সন্তানেরাই এখন জঙ্গিবাদে অংশগ্রহণ করছে।”
গত ১ জুলাই গুলশানের জঙ্গি হামলার পর সশস্ত্র বাহিনীর অভিযানে নিহত ছয়জনের মধ্যে পাঁচজনের ছবি প্রকাশ করে আইএস। ঈদের দিন কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় পুলিশের গুলিতে এক যুবক নিহত হন। এই ছয়জনের মধ্যে চারজনই বিভিন্ন ব্যয়বহুল ইংরেজি মাধ্যমের স্কুলে লেখাপড়া করেছেন। তাদের দুইজন নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির ছাত্র ছিলেন, একজন ছিলেন ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের। সাম্প্রতিক সময়ের এই দুই হামলার পর ‘আর্থিকভাবে স্বচ্ছল ও সম্ভ্রান্ত পরিবারের’ সন্তানদের মধ্যে জঙ্গি কর্মকাণ্ডের প্রবণতা বেশি দেখা যাচ্ছে বলে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) চেয়ারম্যানের সঙ্গে মঙ্গলবারে এক বৈঠকে পর্যবেক্ষণ দেন। ‘জঙ্গিবাদ ও জঙ্গি সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধা ও স্বাধীনতার স্বপক্ষের ব্যক্তিবর্গের এ মুহূর্তে করণীয়’ শীর্ষক এই আলোচনা সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ মুক্তি সংঘ ও বাংলাদেশ আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা লীগ। সভায় জঙ্গি ও সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা মোকাবেলায় অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশ অনেক বেশি সক্ষমতার পরিচয় দিচ্ছে দাবি করেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী মোজাম্মেল হক। গুলশান হামলার প্রসঙ্গ টেনে বিদেশিদের উদ্দেশ করে মন্ত্রী বলেন, “আমাদের দেশে যারা জঙ্গি হামলা করেছে তারা সবাই মারা গেছে, আর বিদেশে যে জঙ্গিরা হামলা করে তাদের মারা তো দূরের কথা, তাদের ধরতেও পারে না। অথচ তারা অনেক বড় বড় কথা বলে আমাদেরকে নিয়ে।”
একাত্তরে বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিরোধিতাকারী দল জামায়াতে ইসলামীকে সমূলে নিষিদ্ধ করা হলে এ ধরনের জঙ্গি হামলার ঘটনা আর ঘটবে না বলে মনে করেন মোজাম্মেল হক।
“জামায়াতের যে সকল নেতাকর্মী বয়স্ক হয়ে গেছে, তাদের সন্তানদেরকে ট্রেনিং দিয়ে জেএমবিতে যোগ দিয়ে এই ধরনের ঘটনা ঘটাচ্ছে। জামায়াতকে সমূলে নিষিদ্ধ করা হলে এ ধরনের হামলার ঘটনা আর ঘটবে না।
“জামায়াত শিবিররা বাসা ভাড়া নিচ্ছে বাসার ছাদে, যেন নিচের কেউ জানতে না পারে তারা বাসার উপরে কি করছে।”
জামায়াত-শিবির দেশকে অকেজো রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায় মন্তব্য করে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী বলেন, “এরা বিদেশিদের হত্যা করছে; তারা মনে করছে বিদেশিদের হত্যা করলে এই দেশে বিদেশিরা বিনিয়োগ করবে না। কিন্তু এখন দেখা যাচ্ছে তার উল্টোটা হচ্ছে, বিদেশিদের আমরা না ডাকতেই তারা এসে আমাদের সাহায্যের হাত বাড়াচ্ছে।”
বাংলাদেশ আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা শেখ আহমেদ হোসেন মির্জার সভাপতিত্বতে আলোচনা সভায় মুক্তিযুদ্ধাকালীন সাব সেক্টর কমান্ডার মাহবুব উদ্দিন আহমেদ, সাবেক বিচারপতি মো. মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, বাংলাদেশ ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মিছবাহুর রহমান চৌধুরীসহ অন্যরা বক্তব্য রাখেন।

 


 

কাশ্মিরে বিক্ষোভকারী-পুলিশের সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা ৩৬

পুলিশকে লক্ষ করে পাথর ছুঁড়ছে বিক্ষোভকারীরা। ছবিটি ২০১৬ সালের ১০ জুলাই তোলা হয়। ছবি: রয়টার্স

ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরে বিচ্ছিন্নতাবাদী এক তরুণ কমান্ডারের মৃত্যুতে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে নিরাপত্তা বাহিনীর সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা ৩৬ জনে দাঁড়িয়েছে। দেশটির কর্মকর্তারা এই তথ্য জানিয়েছেন। কর্মকর্তাদের বরাতে বিবিসি বলছে, বিচ্ছিন্নতাবাদী বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে আহত ১,৫০০ জন চিকিৎসা নিচ্ছেন বলে জানা গেছে। গেল শুক্রবার  জম্মু ও কাশ্মির রাজ্যের বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠী হিজবুল মুজাহিদিনের তরুণ কমান্ডার বুরহান মুজাফ্ফর ওয়ানি ভারতীয় সেনাবাহিনীর এক অভিযানে নিহত হয়েছেন। আর এরপরই রাজ্যটিতে প্রতিবাদ-বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। রাজ্যটির মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি টেলিভিশনের মাধ্যমে সবাইকে শান্ত হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। সাম্প্রতিক বছরগুলোর মধ্যে এবারই প্রথম রাজ্যটিতে কয়েকদিনব্যাপী এই বড় ধরনের সংঘর্ষ-সহিংসতার ঘটনাগুলো ঘটল। ভারত ও পাকিস্তান উভয় রাষ্ট্রই কাশ্মিরকে নিজেদের ভূখণ্ড বলে দাবি করে। দীর্ঘ ৬০ বছর ধরে ওই অঞ্চলটি নিয়ে বিবাদে জড়িয়ে আছে পরমাণু শক্তিধর এই দুই রাষ্ট্র। এই সময়ের মাঝে দুটি দেশই দুইবার বড় ধরনের যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে। মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠের ওই অঞ্চলের বেশ কয়েকটি বিদ্রোহী গোষ্ঠী কাশ্মিরের স্বাধীনতা অথবা পাকিস্তানভুক্ত হওয়ার লক্ষ্যে অস্ত্র তুলে নেয়। চলতি সপ্তার শুরুর দিকে ওই অঞ্চলে নিয়ন্ত্রণ পুনর্প্রতিষ্ঠায় সহায়তার লক্ষ্যে বাড়তি ৮শ’ সেনা পাঠানো হয়। নিহতদের বেশিরভাগই বয়সে তরুণ। তাদের বয়স ১৬ থেকে ২৬ বছরের মধ্যে। চিকিৎসকেরা প্রয়োজনীয় রক্তের অভাবে আরো অনেকের মৃত্যু হতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন। প্রায় শতাধিক মানুষের চোখে শটগানের গুলি লেগেছে। তারা তাদের দৃষ্টিশক্তি হারাতে পারেন। গেল শুক্রবার  তরুণ কমান্ডার ওয়ানির মৃত্যুর পর রাজ্যটিতে জারি করা কারফিউ এখনো বলবৎ রয়েছে। মোবাইল ও ইন্টারনেট এবং ট্রেন সার্ভিসও বন্ধ রয়েছে। বুধবার মুখ্যমন্ত্রী মুফতি সরাসরি বাবা-মায়েদের তাদের অল্পবয়সী সন্তানদের বাড়ি থেকে বের হতে না দেওয়ার জন্য আবেদন জানিয়েছেন। পাশাপাশি তারা যেন প্রতিবাদ-বিক্ষোভে না জড়ায় সেজন্যও আহ্বান জানিয়েছেন। রাজ্য সরকার নিরস্ত্র বিক্ষোভকারীদের উপর পুলিশ আগ্রাসী আচরণ করেছে বলে যে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে তার তদন্ত করবে বলেও ঘোষণা দিয়েছে। এরআগে ২০১০ সালে অঞ্চলটিতে ভয়াবহ সংঘর্ষের ঘটনায় শতাধিক মানুষ নিহত হন।


 

রোনালদোকে পেছনে ফেলে সেরা গেরার গোল

 
 
ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোকে পেছনে ফেলে ইউরোর সেরা গোলের পুরস্কারটি জিতে নিয়েছেন জোলতান গেরা। ৩২ শতাংশ ভোট পেয়ে পর্তুগিজ অধিনায়ককে পেছনে ফেলেন হাঙ্গেরির এই মিডফিল্ডার। গেরার গোলটি গ্রুপের ম্যাচে পর্তুগালের বিপক্ষেই করা। ৩-৩ ড্র ম্যাচের ১৯তম মিনিটে বুক দিয়ে বল নামিয়ে জোরালো শটে লক্ষ্যভেদ করেছিলেন ৩৭ বছর বয়সী গেরা। এ গোলটিকে সেরা হিসেবে বেছে নিয়েছেন ফুটবলপ্রেমীরা। সেমি-ফাইনালে ওয়েলসকে ২-০ ব্যবধানে হারানো ম্যাচে রিয়াল মাদ্রিদের তারকা ফরোয়ার্ড রোনালদোর হেড দিয়ে করা গোলটি ২৪ শতাংশ ভোট নিয়ে হয়েছে দ্বিতীয়। ২৩ শতাংশ ভোট নিয়ে সুইজারল্যান্ডের জেরদান শাচিরির গোলটি হয়েছে তৃতীয়। স্বাগতিক ফ্রান্সের স্বপ্ন গুঁড়িয়ে দিয়ে পর্তুগালকে প্রথম বড় শিরোপার উচ্ছ্বাসে ভাসানো এদেরের গোলটি ১৬ শতাংশ ভোট নিয়ে হয়েছে চতুর্থ। ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়শিপের ফাইনালে বদলি হিসেবে নেমে অতিরিক্ত সময়ে দূরপাল্লার শটে জয়সূচক গোলটি করেন এদের। ৫ শতাংশ ভোট নিয়ে পঞ্চম হয়েছে বেলজিয়ামের বিপক্ষে ওয়েলসের মিডফিল্ডার হ্যাল রবসন-কানুর গোলটি।

 
 
 

 

-----------------------

প্রিয় দর্শক, Millenniumtvusa আপনাদের টিভি, আপনাদের উৎসাহ আমাদের অগ্রযাত্রার উৎস। আপনাদের মূল্যবান মন্তব্য জানাতে লগইন করুন facebook.com/millenniumtvusa, সঙ্গে থাকুন মিলেনিয়ামের।